দক্ষতা ও উন্নয়ন ভাষা শিক্ষা শিক্ষায় তথ্য, যোগাযোগ প্রযুক্তি ও কম্পিউটার

ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্রে ইংরেজি শিক্ষা কার্যক্রম: সম্ভাবনার নতুন দ্বার

বাংলাদেশের শিক্ষা
বাংলাদেশের শিক্ষা
লিখেছেন সম্পাদক

আসাদ-উজ-জামান: বিশ্বায়নের এ যুগে ইংরেজি শিক্ষার শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। বাংলাদেশে ইংরেজিকে দ্বিতীয় ভাষা (ESL) হিসেবে প্রচলনের দাবিও দীর্ঘদিনের। গ্রামীণ মানুষের জন্য ইংরেজি শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্ধি করে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্রে (ইউআইএসসি) চালু করা হয়েছে ইংরেজি শিক্ষা কার্যক্রম, উম্মোচিত হয়েছে সম্ভাবনার নতুন দ্বার। ফলে এখন থেকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষাথী, শিক্ষিত বেকার যুবক, শিক্ষক ও অভিভাবকরা আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ইংরেজি পার্শ্ববর্তী ইউআইএসসি থেকেই শিখতে পারবেন।

ইংরেজি শিক্ষা

ইংরেজি শিক্ষা

ইউএনডিপির আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় পরিচালিত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম বাংলাদেশের তৃণমুলে ইংরেজি শিক্ষার প্রসার ঘটাতে গত ২৭ অক্টোবর, ২০১০ তারিখে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সাথে সমঝোতা স্মারক (MoU) স্বাক্ষর করেছে। সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী ব্রিটিশ কাউন্সিল দেশের ৪,৫০১টি ইউনিয়ন ও তথ্য ও সেবাকেন্দ্রে পর্যায়ক্রমে ইংরেজি শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করবে। প্রাথমিকভাবে তারা ৭ বিভাগের ১০টি ইউআইএসসিতে পাইলট কর্মসূচি পরিচালনা করছে।

ইংরেজি শিক্ষা

ইংরেজি শিক্ষা

ব্রিটিশ কাউন্সিলের আন্তর্জাতিক কন্টেন্ট বিশেষজ্ঞদল গত মার্চ-এপ্রিল মাসে বাংলাদেশের কয়েকটি ইউআইএসসি পরিদর্শন করেন। এ সময় তারা স্থানীয় জনসাধারনের কন্টেন্ট চাহিদা নিরূপণ ও ইউআইএসসি উদ্যোক্তাদের দক্ষতা চাহিদা নিরূপণের জন্য একটি জরিপ পরিচালনা করেন। জরিপ ফলাফল অনুযায়ী তারা বাংলাদেশের সমাজ, সংস্কৃতির উপযোগী করে গ্রামীণ অঞ্চলের মানুষের জন্য ‘স্থানীয়করন কন্টেন্ট (localized content)’ প্রস্তুত করেন। এ কন্টেন্টসমূহের অনলাইন ও অফলাইন ভার্সন (সিডি, ডিভিডি) তৈরি করা হয়, এবং কন্টেন্টসমূহ ব্যবহারের জন্য ইউআইএসসি উদ্যোক্তাদের জন্য বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় ‘ব্যবহার নির্দেশিকা (User Guide)’ তৈরি করা হয়। গত ২৫ মে, ২০১১ তারিখে ঢাকায় ব্রিটিশ কাউন্সিল কর্তৃক ১০টি ইউআইএসসির ২০ জন উদ্যোক্তার (প্রতি কেন্দ্রের ১ জন ছেলে ও ১ জন মেয়ে) জন্য কন্টেন্ট বিষয়ক প্রশিক্ষণ-কর্মশালা আয়োজন করা হয়। কর্মশালায় ইংরেজি কন্টেন্টসমূহের পরিচিতি, ব্যবহার পদ্ধতি, ব্যবসা পরিকল্পনা ও উদ্ধুদ্ধকরণ কৌশল সম্পর্কে সম্যক ধারণা দেওয়া হয় যাতে করে উদ্যোক্তারা এ কন্টেন্টসমূহ ব্যবহারের মাধ্যমে নিজ নিজ কেন্দ্রকে সামাজিক ও ব্যবসায়িকভাবে টেকসইকরণ ও গ্রামীন মানুষের ইংরেজি চাহিদা পূরণে সক্ষম হয়। শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষিত বেকার যুবক, শিক্ষার্থী ও শিশুদের জন্য ব্রিটিশ কাউন্সিলের প্রস্তুতকৃত কন্টেনসমূহ নিম্নে উল্লেখ করা হলো:

টিচিং ইংলিশ: শিক্ষকদের জন্য তৈরিকৃত ওয়েবসাইট হলো www.teachingenglish.org.uk. বিভিন্ন দেশের প্রায় বারো হাজারেরও বেশি শিক্ষক এ সাইটটির সদস্য। এ সাইটটির মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের শিক্ষকরা পারস্পরিক আলোচনা, মিথস্ক্রিয়া ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করতে পারবেন। তারা শ্রেণীকক্ষে ব্যবহারের জন্য পাঠ পরিকল্পনা ও উপকরণ ডাউনলোড করতে পারবেন। শিক্ষকরা তাদের পেশাগত উন্নয়ন, সম্মেলন, ডিগ্রি বিষয়ক টিপস, প্রবন্ধ ও বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ উপকরন গ্রহণ করতে পারবেন। বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের শিক্ষকদের প্রস্তুত করা কন্টেন্টসমূহ অনুশীলন ও ডাউনলোডও করতে পারবেন এখান থেকে।

লার্ন ইংলিশ: স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, শিক্ষিত বেকার যুবক ও পেশাজীবীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে www.britishcouncil.org/learnenglish ওয়েবসাইটটি। যে কেউ এ সাইটটির সদস্য হতে পারবেন, অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করতে পারবেন, বিনামূল্যে উপকরণ ডাউনলোড করতে পারবেন এবং সাইটটির উন্নয়নে অবদান রাখতে পারবেন। ইংরেজি শিক্ষার মজাদার অনুশীলনের জন্য এখানে রয়েছে প্রচুর অডিও ও ভিডিও ক্লিপ, ইংরেজি ব্যাকরণ ও শব্দ শেখার সহজ উপায়, মোবাইল ফোনে ইংরেজি ভাষায় কৌতুক ও খেলা, ক্যারিয়ার সংশ্লিষ্ট ইংরেজি, আইএলটিএস মক টেস্ট ও ইংরেজী পরীক্ষার অন্যান্য উপকরণ এবং বিভিন্ন সামাজিক নেটওয়ার্ক, যেমন-ফেসবুক, টুইটার ও ইউটিউবে ইংরেজি শেখা। শেক্সপিয়ার থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরসহ সব বিখ্যাত লেখকদের রচনা পড়া ও শোনার ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। এটা শব্দ শেখার এবং শ্রবণ অনুশীলনের এক কাব্যিক উপায়। বিজ্ঞান থেকে শুরু করে সামাজিক বিষয়সহ বিভিন্ন ধরনের বিষয়ের উপর প্রকাশিত প্রবন্ধগুলো ইন্টারঅ্যাকটিভ পরিবেশে পড়ার ও শোনার ব্যবস্থাও রয়েছে এখানে।

লার্ন ইংলিশ কিডস: শিশুদের জন্য উপযোগী একটি মজার ওয়েবসাইট হচ্ছে www.britishcouncil.org/learnenglishkids. এখানে রয়েছে গেমস, গান, গল্প, ভিডিও ও অন্যান্য কার্যক্রম। এই উপকরণগুলো এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যেন শিশুরা নিজে বা বন্ধু এবং অভিভাবকদের সঙ্গে নিয়ে এটা ব্যবহার করতে পারে। ক্লান্তিকর পড়া ও লেখা দূর করতে এখানে রয়েছে মজার মজার অনুশীলন, যে অনুশীলনের মাধ্যমে শিশুরা মজা করে করে নতুন নতুন শব্দ শিখতে পারে। এখানে আরো একটি অধ্যায় রয়েছে যেটা তরুন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সহায়তা প্রদানের জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে। পাশাপাশি শিক্ষকদের জন্য শ্রেণীকক্ষে ব্যবহার উপযোগী প্রচুর উপকরণও রয়েছে এখানে।

ইউআইএসসি থেকে ইংরেজি শিক্ষা কার্যক্রম চালু হওয়ার মাধ্যমে ‘জনগণের দোড়গোড়ায় সেবা’ পৌঁছানোর আরো একটি বিরাট মাইলফলক অর্জিত হলো। এ উদ্যোগ গ্রামীণ জনপদের মানুষের ইংরেজী দক্ষতা বৃদ্ধি, ক্ষমতায়ন ও ইতিবাচক পরিবর্তনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।

আসাদ-উজ-জামান: জুনিয়র কনসালট্যান্ট, একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম, (জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি-ইউএনডিপি বাংলাদেশ), প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। ইমেইল: [email protected]

লেখাটি কতোটুকু পছন্দ হয়েছে?

লেখক সম্পর্কে

সম্পাদক

মন্তব্য লিখুন