বাংলাদেশের শিক্ষা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্যবাহী আইন বিভাগ

মোঃ শাহ্ আলম

বাংলাদেশে আইন বিষয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের বেশকিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। চাহিদার কারণে আইন শিক্ষার বিস্তার ঘটছে ক্রমাগতভাবে। তবে বর্তমানে সাতটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (সম্প্রতি বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিভাগটির যাত্রা শুরু হয়েছে)।

আইন বিষয়ে শিক্ষার প্রসারে বর্তমানে এসব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে নিঃসন্দেহে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন  বিভাগ অগ্রগণ্য এবং অন্যতম ঐতিহ্যবাহী। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ চালু হয় ১৯৫৩ সালে। ১৯৫৪ সালে এখানে আইন বিষয়ে দুই বছরের পাসকোর্স চালু হয়। ১৯৭০ সালে স্নাতক  ও ১৯৭৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি দেওয়া শুরু হয়। ১৯৭৩ সালে বিভাগটির নামকরণ হয় ‘জুরিসপ্রোডেন্স’। পরবর্তী সময়ে কোর্স দুটিকে এলএলবি (সম্মান) ও এলএলএম (মাস্টার্স) নামকরণ করা হয়। বর্তমানে এখানে এ দুটি কোর্সের পাশাপাশি এমফিল ও পিএইচডি কোর্সও চালু রয়েছে। রয়েছে সান্ধ্যকালীন দুই বছর মেয়াদি এলএলএম কোর্সও। এর এলএলবি (সম্মান) কোর্সটি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতোই চার বছর মেয়াদি আর এলএলএম (মাস্টার্স) কোর্সটি এক বছর মেয়াদি।

বর্তমানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এই আইন বিভাগ ও অনুষদে ডীন হিসেবে নিয়োজিত আছেন বিশ্বজিত্‍ চন্দ এবং চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োজিত আছেন অধ্যাপক ড. আহসান কবির। এছাড়াও এখানে রয়েছেন সুদক্ষ ২৮ জন পূর্ণকালীন শিক্ষক। সর্বমোট প্রায় ৬০০ জন ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে এই বিভা

গটি তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রতি বছর এখানে এলএলবি (সম্মান) কোর্সটিতে ভর্তির জন্য আসন সংখ্যা থাকে ১০০টি। মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে ছাত্র-ছাত্রীরা এখানে পড়ালেখা করার সুযোগ পায়।

এখানে  শুধু পুঁথিগত শিক্ষায় পাঠদান সীমাবদ্ধ থাকে না। নিয়মিত এখানে শিশু অধিকার, নারী অধিকার, উত্তরাধিকার, জুডিশিয়াল রিভিউ, সিভিল জাস্টিস সিস্টেম ইত্যাদি বিষয়ে বিভিন্ন সেমিনার ও ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হয়ে থাকে। সম্প্রতি ইউএস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ইউএসএআইডি)-এর জাস্টিস ফর অল প্রোগ্রাম (জেএফএ)-এর উদ্দ্যোগে বিচার ব্যবস্থায় নারীর অংশগ্রহণ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়। এসব সেমিনার ও ওয়ার্কশপে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা আইনের বিভিন্ন তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক দিক সম্পর্কে সম্যক ধারণা অর্জন করতে পারে। এছাড়াও ভবিষ্যতের একজন সফল আইনজীবি হিসেবে ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে আইনের যেকোনো ঝুঁকি মোকাবেলা করতে পারে, সে জন্য এখানে মুট কোর্ট (Moot Court) নামে একটি কোর্স রয়েছে। এ কোর্সটিতে শিক্ষার্থীদের আদালতের কার্যধারা, বিভিন্ন ধরনের ড্রাফটিং, এ্যাডভোকেসী ইত্যাদি বিষয়ে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। সম্প্রতি এ কোর্সটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে গ্রাজুয়েট যখন এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে ডিগ্রি গ্রহণ করে, তখন পুঁথিগত জ্ঞানের পাশাপাশি আদালতে প্র্যাকটিশনার আইনজীবি হিসেবে কাজ শুরু করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

এছাড়াও আইন বিষয়ের অনেক মূল্যবান গ্রন্থ ও রেফারেন্স বই আইন বিভাগের সেমিনার লাইব্রেরি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক লাইব্রেরিতে রয়েছে। এসব লাইব্রেরিতে ডিএলআর, বিএলবি, বিএলসি, এমএলআর, বিএলটি, এডিসি ইত্যাদিসহ বাংলাদেশের সকল ল’ জার্নালের আপ-টু-ডেট কপি রয়েছে। লাইব্রেরি কার্ডের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা প্রয়োজনে বই বাসায় নিয়ে যেতে পারে।

যুগ যুগ ধরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীরা ‘বার কাউন্সিল’ ও ‘জেএসসি (জুডিসিয়াল সার্ভিস কমিশন)’ পরীক্ষায় প্রায় শতভাগ পাশ করে আসছে। এখান থেকে পাসকৃত প্রায় সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রী দেশের বিভিন্ন আদালতে আইনজীবি হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। বিচার বিভাগে বিচারপতি, বিচারক ও ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে উল্লেখযোগ্য  সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী নিযুক্ত রয়েছেন। এছাড়াও প্রায় সহস্রাধিক আইন গ্রাজুয়েট দেশের ও বিদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করছেন। এর পাশাপাশি প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়েও এই আইন বিভাগের অসংখ্য শিক্ষার্থী কর্মরত রয়েছেন।

এক কথায় বলতে গেলে, আইন শিক্ষাকে পুঁথিগত বিদ্যায় সীমিত না রেখে বাস্তবভিত্তিক ও পেশাভিত্তিক শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় একটি নতুন দিকমাত্রা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। দেশে আইন শিক্ষার বিস্তারে এবং বিচার বিভাগের পৃথকীকরণের ফলে যে বিপুল সংখ্যক মানসম্পন্ন আইনজীবির প্রয়োজন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ তা পূরণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার মাধ্যমে তার ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখতে সক্ষম হচ্ছে।

মোঃ শাহ্ আলম: শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Exit mobile version