ই-শিক্ষা

মোবাইল লার্নিং: শিক্ষার নতুন প্রেক্ষাপট

মোবাইল লার্নিং
আকলিমা শরমিন
লিখেছেন আকলিমা শরমিন

শিশুদের মোবাইল ব্যবহার নিয়ে বাবা-মায়ের দুঃশ্চিন্তার দিন বোধ হয় শেষ হতে চললো। মোবাইল দিয়ে শুধু গেইম না খেলে যদি ক্লাসের অঙ্কের চর্চা করা যায়, তবে কেমন হয়?

শিশুদের মোবাইল ব্যবহার নিয়ে বাবা-মায়ের দুঃশ্চিন্তার দিন বোধ হয় শেষ হতে চললো। মোবাইল দিয়ে শুধু গেইম না খেলে যদি মোবাইল লার্নিং বা ক্লাসের অঙ্কের চর্চা করা যায়, তবে কেমন হয়? আফ্রিকার দেশ সেনেগেলের শিশুরা এভাবেই অঙ্ক শিখছে এখন। শীর্ষস্থানীয় মোবাইল ফোন নির্মাতা নোকিয়া এই সুযোগটি করে দিয়েছে তাদের জন্য। নোকিয়ার উদ্যোগটি সেনেগালের প্রেক্ষাপটনির্ভর হলেও এর থেকে উপকৃত হতে পারি আমরা সবাই।

ইউনিসেফের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে বর্তমানে (২০১০ সাল পর্যন্ত) আমাদের দেশে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৪৬ জন মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। দিন দিন যে এই ব্যবহার বাড়ছে তাতে কোনো সন্দেহ নাই।  মোবাইল শিখন বা মোবাইল লার্নিং নিয়ে আলোচনা-গবেষণা হচ্ছেও অনেক বেশি।  এরই পরিপ্রেক্ষিতে ফেব্রুয়ারির ১৮-২২ তারিখ ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে পালিত হলো দ্বিতীয় মোবাইল লার্নিং সপ্তাহ (Mobile Learning Week-MWL)। এর আগে ২০১১ সালের ১২-১৬ ডিসেম্বর পালিত হয়েছিলো প্রথম মোবাইল লার্নিং সপ্তাহ।

বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রায় ছয়শ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। আর বাংলাদেশ বিটিআরসির প্রদত্ত উপাত্ত অনুসারে মোবাইলের ব্যবহারকারী রয়েছে প্রায় ৯.৩ কোটি, যা আমাদের মোট জনসংখ্যার চার ভাগের প্রায় তিন ভাগ। তাহলে বোঝা যাচ্ছে, এই বিপুল জনগোষ্ঠীর সবাই সরাসরিভাবে মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহারের সাথে জড়িত। আর আমরা যদি একটু অন্যভাবে চিন্তা করি, তাহলে বুঝতে পারবো এই বিপুল জনগোষ্ঠীর সাথে সম্পৃক্ত  আছে আরও বেশ কিছু জনগণ যারা প্রত্যক্ষভাবে না হলেও পরোক্ষভাবে মোবাইলের সাথে জড়িত। আমাদের শিশুদের কাছে এই মোবাইলের জনপ্রিয়তাও অনেক। কাজেই আমরা যদি মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহারে মাধ্যমে শিক্ষার ধারণাটি গ্রহণ করে কাজে লাগাতে পারি তাহলে লাভবান হবো আমরাই।

বাংলাদেশেও বিবিসি জানালার মাধ্যমে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে উপকৃত হচ্ছেন দুই কোটি বিভিন্ন বয়সের শিক্ষার্থী। ধরা যাক,  বিদেশগামী একজন কর্মীর কথা- প্রাতিষ্ঠিনিকভাবে যার এখন ইংরেজি ভাষা শেখার জন্য সময় এবং সুযোগ নেই। তিনি এখন খুব সহজেই তার হাতের মুঠোফোনের মাধ্যমে কাজ চালানোর মতো ইংরেজি শিখতে পারছেন। এটি সম্ভব হয়েছে মোবাইল প্রযুক্তির কল্যাণে। এতো গেলো অপ্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার কথা কিন্তু একে আমরা সহজেই আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সাথে সম্পৃক্ত করতে পারি। অঙ্ক, ইংরেজি বা বিজ্ঞানের মতো জটিল বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের শিক্ষার্থীদের সমস্যা বেশ পুরোনো। শিক্ষার্থীদের এই সমস্যা দূর করার জন্য আমরা খুব সহজেই মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহার করতে পারি।

শিক্ষার্থীদের কাছে মোবাইল অনেক আকর্ষণীয় এবং সহজলভ্য একটি যন্ত্র। এটি নিয়ে তারা তাদের অবসরের অনেকটা সময় ব্যয় করে, হোক সেটা তাদের নিজস্ব অথবা অভিভাবকের। এই অবসরের কিছু সময় যদি তারা অঙ্কের চর্চা বা ভাষার চর্চা করে তাহলে কেমন হয়? শুধু অবসরের সময় নয়, যদি মোবাইলকে আমরা তাদের সামনে একটি শিক্ষোপকরণ হিসেবে তুলে ধরতে পারি, তাহলে যেকোন সুবিধাজনক সময়েই সে মোবাইলের সাহায্যে শিখতে পারে। নোকিয়ার অঙ্ক শেখার মোবাইল সাইটটি আমাদের জন্য একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ হতে পারে। এই ওয়েবসাইটটি সবার ব্যবহারে জন্য এখন পর্যন্ত  http://momaths.nokia.com/m/courses উন্মুক্ত। এতে যে কেউ অ্যাকাউন্ট খুলে এর বিষয়বস্তুগুলো ব্যবহার করতে পারবে। বিষয়ভিত্তিক অঙ্কের ক্ষেত্রে প্রশ্নের নিচের শিক্ষার্থীরা পাবে প্রশ্ন বা অঙ্কটি সমাধানের নির্দেশনা এবং প্রয়োজনীয় সূত্রের বর্ণনা। এক কথায় বললে একজন শিক্ষার্থীর শিখনের সবরকম দিকের কথা মাথায় রেখে এই মোবাইল ওয়েব সাইটটি তৈরি করা হয়েছে।

বর্তমানে মোবাইল লার্নিং নিয়ে কাজ করছে বিশ্বের অনেক দেশ। তাদের সহযোগিতা করছে অনেক নামিদামি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান। আমাদের এই সুযোগগুলোই কাজে লাগাতে হবে।

লেখক সম্পর্কে

আকলিমা শরমিন

আকলিমা শরমিন

আকলিমা শরমিন ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ-এর ঢাকা অফিসে বিভাগীয় শিক্ষা সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছেন।

মন্তব্য লিখুন